আমেরিকাঘুষের মামলায় দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প, সিদ্ধান্ত পাল্টানোর আবেদন

ঘুষের মামলায় দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প, সিদ্ধান্ত পাল্টানোর আবেদন

- Advertisment -spot_img

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ঘুষের মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেছেন নিউইয়র্কের আদালত। সেই মামলায় তাঁকে আদালতের দোষী সাব্যস্ত করার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন তাঁর আইনজীবীরা। একইসাথে এ মাসে তাঁর সাজা ঘোষণার দিন পেছানোর দাবিও তুলেছেন তাঁরা।

মার্কিন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিউইয়র্কে এ মামলার বিচারকের কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন ট্রাম্পের আইনজীবীরা। চিঠিতে তাঁরা বলেছেন, গতকাল সোমবার সুপ্রিম কোর্ট একটি আদেশ জারি করেছেন। এতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট থাকাকালে তিনি যেসব প্রাতিষ্ঠানিক কাজ করেছেন, সেসবের জন্য দায়মুক্ত থাকবেন ট্রাম্প।

২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে যৌন সম্পর্কের বিষয়ে মুখ না খুলতে পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার ঘুষ দেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার হাতে এ অর্থ তুলে দিয়েছিলেন ট্রাম্পের আইনজীবী মাইকেল কোহেন। জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যবসায়িক নথিতে বিষয়টি গোপন রাখেন তিনি। এ–সংক্রান্ত মামলায় তাঁর বিরুদ্ধে ৩৪টি অভিযোগ আনা হয়, যার সব কটিতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। ১১ জুলাই তার সাজা ঘোষণার দিন ধার্য করা হয়েছে।

২০১৭ সালে প্রেসিডেন্ট থাকাকালে ট্রাম্প বেশ কিছু ব্যবসায়িক নথিতে স্বাক্ষর করেন। তাঁর আইনজীবীদের দাবি, বিষয়টিকে তাঁর দাপ্তরিক কাজ হিসেবেই বিবেচনায় নেওয়া উচিত। গত বছরও আইনজীবীরা একই দাবি তোলেন। ওই সময় তাঁরা জানান, ওই মামলায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা প্রেসিডেন্টের দায়িত্বের অধীনে দাপ্তরিক কাজের মধ্যেই পড়ে।

তবে এক ফেডারেল বিচারক লিখেছেন, ট্রাম্প তাঁর ওই কাজকে দাপ্তরিক কাজ হিসেবে প্রমাণ করতে পারেননি।

এদিকে গতকাল ট্রাম্পের বেশ কয়েকটি মামলার রায় দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্ট জানান, প্রেসিডেন্ট হিসেবে সংবিধানের অধীন ট্রাম্প যেসব পদক্ষেপ নিয়েছিলেন, সেগুলোয় দায়মুক্তি পাবেন। তবে ব্যক্তিগত কর্মকাণ্ডের জন্য দায়মুক্তি পাবেন না তিনি।

সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২০ সালের নির্বাচনে কারচুপির ঘটনা খতিয়ে দেখতে বিচার বিভাগকে যে নির্দেশ ট্রাম্প দিয়েছিলেন, তা প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁর দাপ্তরিক কাজের মধ্যে পড়ে।

এ রায় ঘোষণার পর উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন ট্রাম্প। তবে ট্রাম্প ও তার আইনজীবীরা যে ব্যাপক সুবিধা পাওয়ার আশা করেছিলেন, তা পাননি। নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে উচ্চ আদালতের এ রায়ে অনেকটাই সুবিধাজনক স্থানে চলে গেলেন ট্রাম্প।

সূত্র- নিউ ইয়র্ক টাইমস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest news

বাংলাদেশে চলমান অস্থিরতায় প্রবাসীদের সাথে নিউইয়র্ক মেয়রের সংহতি

বাংলাদেশের চলমান বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের প্রতি সংহতি জানালেন মেয়র এরিক অ্যাডামস এরিক অ্যাডামস বাংলাদেশের চলমান সহিংস বিক্ষোভ নিয়ে উদ্বেগ...

জার্মানির বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে কোটা আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে বিক্ষোভ

জার্মানি প্রতিনিধি কোটা সংস্কারের দাবীতে চলমান আন্দোলনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে সংহতি জানিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ মিছিল...

বাংলাদেশে ছাত্র-ছাত্রীদের হত্যা, নির্যাতনের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে ইতালি প্রবাসীরা

মালিক মনজুর ইতালি প্রতিনিধি বাংলাদেশে কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও ছাত্রলীগ দ্বারা সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের হত্যা, নির্যাতনের প্রতিবাদে সাংবাদিক...

গুলিবিদ্ধ হয়ে ঢাকা টাইমসের সাংবাদিক মেহেদী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা রাজধানীর যাত্রবাড়িতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ চলাকালে এক সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। নিহত সাংবাদিকের নাম...
- Advertisement -spot_img

ইউরোপের কাছে সহায়তার আর্জি তিউনিশিয়ার

ডেস্ক রিপোর্ট তিউনিশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বুধবার ইউরোপীয় দেশগুলোর কাছে আর্থিক সহায়তা বৃদ্ধির আহ্বান জানিয়েছেন। সাব-সাহারান আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসী প্রবাহ মোকাবেলা...

আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যায়...

Must read

বাংলাদেশে চলমান অস্থিরতায় প্রবাসীদের সাথে নিউইয়র্ক মেয়রের সংহতি

বাংলাদেশের চলমান বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের প্রতি সংহতি জানালেন...

জার্মানির বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে কোটা আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে বিক্ষোভ

জার্মানি প্রতিনিধি কোটা সংস্কারের দাবীতে চলমান আন্দোলনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে...
- Advertisement -spot_img

You might also likeRELATED
Recommended to you